এশিয়া কাপে এই একটি বিভাগে ভারতের চেয়ে এগিয়ে পাকিস্তান!

যত এগোচ্ছে দিন, ততই উত্তেজনা বাড়ছে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে। কোন জায়গায় এগিয়ে থাকবে পাকিস্তান, জানালেন সরফরাজ। আর কয়েক দিন পরেই এশিয়া কাপে মুখোমুখি হতে চলেছে ভারত এবং পাকিস্তান।

গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর এই প্রথম। যত এগোচ্ছে দিন, ততই উত্তেজনা বাড়ছে এই ম্যাচ নিয়ে। কে জিতবে তা নিয়ে অনেকে অনেক রকম বিশ্লেষণ করছেন। সেই দলে রয়েছেন সরফরাজ আহমেদও।

পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক মনে করছেন, একটি বিষয়ে তাঁর দেশ ওই ম্যাচে এগিয়ে থাকবে। তা হল, আমিরশাহিতে খেলার অভিজ্ঞতা। সরফরাজ বলেছেন, “যে কোনও প্রতিযোগিতায় প্রথম ম্যাচ গুরুত্বপূর্ণ।

সেটা ভারতের বিরুদ্ধে হওয়ায় এমনিতেই গোটা দল তেতে থাকবে। গত বছর এই মাঠেই ভারতকে হারিয়েছিলাম। পাকিস্তান এই মাঠের পরিবেশ অনেক ভাল জানে। আমরা এখানে পাকিস্তান সুপার লিগে খেলেছি। অনেক হোম সিরিজও খেলেছি।

মানছি ভারতও এই মাঠে আইপিএল খেলেছে। কিন্তু ওদের থেকে আমরা এই পরিবেশ অনেক ভাল চিনি।” জিততে গেলে দলের এক জন ক্রিকেটার গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন সরফরাজ।

তিনি শাহিন আফ্রিদি। সরফরাজ বলেছেন, “শাহিনের ফিট হয়ে ওঠা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ভারতের এখনকার দল বেশ ভাল ক্রিকেট খেলছে। তবে সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটে আমাদের দলও কারও থেকে কম যায় না।”

টুর্নামেন্টে ভারত ও পাকিস্তানের একাধিকবার মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এবার দেখে নেওয়া যাক পাকিস্তান কেন এই ম্যাচে হারাবে তার পিছনের তিনটি কারণ:

বাবর আজম-মোহাম্মদ রিজওয়ানের ওপেনিং জুটি
এই এশিয়া কাপে পাকিস্তানের অন্যতম সেরা ওপেনিং জুটি রয়েছে। মোহাম্মদ রিজওয়ানের সঙ্গে ওপেন করেন ক্যাপ্টেন বাবর আজম। তারা দুজনেই গত বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের ১৫১ রান তাড়া করেছিল এবং ম্যাচটি ১০ ​​উইকেটে জিতে নেয়।

দুই ব্যাটসম্যানই সমান স্বাচ্ছন্দ্যে পেস ও স্পিন খেলতে পারদর্শী। ভারতের খেলা জিততে হলে ওপেনিং জুটিকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আউট করতে হবে।

শাহীন আফ্রিদি ফ্যাক্টর
গত বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচে ভারতের টপ অর্ডারকে শুরুতেই আউট করেছিলেন শাহীন আফ্রিদি। এশিয়া কাপেও সে চেষ্টা করতে পারেন তিনি। ভারতের ওপেনিং ব্যাটিং অর্ডার এখনও ঠিক হয়নি।

বিরাট কোহলির বর্তমান ফর্ম বিবেচনা করে আফ্রিদি একজন মারাত্মক বোলার হয়ে উঠেছেন। রোহিত শর্মা এবং কেএল রাহুলও তাদের ইনিংসের শুরুতে শর্ট বলের বিরুদ্ধে অস্বস্তিকর দেখায়। তাই সব মিলিয়ে আফ্রিদির বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের।

একইরকমের প্রথম একাদশ
এই মুহুর্তে পাকিস্তানের অন্যতম সেরা একাদশ রয়েছে। তারা টুর্নামেন্টের জন্য ১৫ সদস্যের একটি দল বেছে নিয়েছে এবং তাদের মধ্যে অনেকেই দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন। অন্যদিকে, সাম্প্রতিক সময়ে ভারত অনেক খেলোয়াড়কে প্রচুর সুযোগ দিয়েছে।

আর এখন রাহুল ও কোহলির মতো অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের বাদ দিয়ে ফিরিয়ে আনা হয়েছে যারা একেবারেই ভালো ফর্মে নেই। একইসঙ্গে ভারতে মাত্র ৩ জন ফাস্ট বোলার রয়েছে। এরই সঙ্গে জসপ্রীত বুমরাহ ও হর্ষাল প্যাটেলের মতো অভিজ্ঞ বোলাররাও চোটের জন্য দলের বাইরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *