ক্রিকেটবিশ্বেকে তাক লাগিয়ে নাঈমের ঝড় বাটিং টান্ডবে সেঞ্চুরি সাব্বিরের ফিফটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বড় জয় পেল বাংলাদেশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ এ ক্রিকেট দল। সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কে ৪৪ রানে হারিয়েছে টাইগার।

দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে আগে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৭৭ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ এ ক্রিকেট দল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৫০ ওভারে নয় উইকেট হারিয়ে ২৩৩ রান সংগ্রহ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ এ দলের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে টসে হেরে এখন ব্যাট করছে বাংলাদেশ। টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই সৌম্য সরকারের উইকেট হারায় বাংলাদেশ। দলীয় ১৪ রানের মাথায় ১০ বলে মাত্র ৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন সৌম্য সরকার।

তবে এরপর ৫৫ রানের পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন মোহাম্মদ নাঈম শেখ এবং সাইফ হাসান। দলীয় ৭৪ রানের মাথায় ১৯ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন সাইফ হাসান। তবে অন্য প্রান্ত থেকে একাই দুর্দান্ত খেলতে থাকেন নাঈম শেখ। নয়টি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি।

মোঃ মিঠুন কে সাথে নিয়ে স্কোর বড় করতে থাকেন না্ঈম শেখ। তুলে নেন সেঞ্চুরি। তবে সেঞ্চুরি তুলে নেওয়ার পর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি নাঈম শেখ। ১১৫ বলে ১৪টি চার এবং একটি ছক্কার সাহায্যে ১০৩ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন তিনি। নাইমের পর প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন অধিনায়ক মোঃ মিঠুন। ৪৭ বলে ২৮ রান করেন তিনি।

তবে দলকে বড় সংগ্রহের দিকে এগিয়ে নিয়ে যান সাব্বির রহমান এবং শাহাদাত হোসেন দিপু। ৩৩ বলে ২৪ রান করে দিপু আউট হলেও অন্য প্রান্ত থেকে ৫০ বলে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন সাব্বির রহমান। শেষ পর্যন্ত ৫৮ বলে ৬টি চার এবং একটি ছক্কা হাঁকিয়ে ৬২ রান করেন সাব্বির রহমান। এছাড়াও জাকির আলী ১১ বলে ১৭ রান করে অপরাজিত থাকেন।

বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং স্কোর কার্ড
জভাবে ব্যাট করতে নেমে ওপেনিং জুটি-তে দুর্দান্ত শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দুই ওপেনার জশুয়া ডি সিলভা ও ত্যাগনারাইন চন্দরপল। ২০.২ ওভারে দুইজন মিলে যোগ করেন ৯৪ রান। তবে ওপেনিং দুটি হারানোর পরে ছন্দপতন হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের। ম্যাচে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ।

ওপেনিং জুটি ভেঙ্গে বাংলাদেশকে খেলায় ফেরান রেজাউল রহমান রাজা। প্রথমে ৩৮ রান করা ত্যাগনারাইন চন্দরপলকে বোল্ড করেন তিনি। এরপর দুর্দান্ত খেলতে থাকা আরেক ওপেনার অধিনায়ক জশুয়া ডি সিলভাকে ৬৮ প্যাভিলিয়নের ফেরান রাজা।

ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। দ্রুতই ওয়েস্ট ইন্ডিজের উইকেটে তুলে নিতে থাকে টাইগাররা। দলীয় ১৫৫ রানের মাথায় জোড়া উইকেটে তুলে নেয় বাংলাদেশ। প্রথমে ৩১ রান করা টেডি বিশপকে প্যাভিলিয়নের ফেরান মাকিদুল ইসলাম মুগ্ধ। এবং ১৩ রান করে মিঠুনের দুর্দান্ত র্থ্রো-তে রান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরান জাস্টিন গ্রিভসকে।

৬ রান পরেই টেভিন ইমলাক-কে বোল্ড করেন মুগ্ধ। এবং ৪ রান পরেই আবারো জোড়া উইকেটে তুলে নেয় বাংলাদেশ। ৭ রান করা আলিক আথানেজ-এর উইকেটে তুলে নেন রকিবুল হাসান এবং ০ রানেই শামার স্প্রিঙ্গার-কে প্যাভিলিয়নে ফেরান খালেদ আহমেদ।

তবে এরপরে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন অ্যান্ডারসন ফিলিপ ও রায়ান চার্লস। তবে ব্যাটিংয়ে না পারলেও শেষের দিকে বল হাতে পুষিয়ে দিয়েছেন সৌম্য সরকার। ১৫ রান করা অ্যান্ডারসন ফিলিপকে প্যাভেরিয়নে ফেরান সৌম্য সরকার। দলীয় ২২৩ রানের মাথায় প্রেস্টন ম্যাকসুইনের উইকেটে তুলে নেন মুগ্ধ।

বাংলাদেশের বোলিং স্কোর কার্ড
বাংলাদেশ ‘এ’ দল : সৌম্য সরকার, সাইফ হাসান, নাইম শেখ, মোহাম্মদ মিঠুন (অধিনায়ক), মাহমুদুল হাসান জয়, জাকির হাসান, শাহাদাত হোসেন দিপু, জাকের আলী অনিক, সাব্বির রহমান, নাঈম হাসান, রাকিবুল হাসান, রেজাউর রহমান রাজা, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ‘এ’ দল : জশুয়া ডি সিলভা (অধিনায়ক), আলিক আথানেজ, টেডি বিশপ, ত্যাগনারাইন চন্দরপল, ইয়ানিক ক্যারিয়াহ, জাস্টিন গ্রিভস, টেভিন ইমলাক, শার্মন লুইস, জেরেমিয়া লুইস, প্রেস্টন ম্যাকসুইন, মার্কুইনো মাইন্ডলি, অ্যান্ডারসন ফিলিপ, কেভিন সিনক্লেয়ারন ও শামার স্প্রিঙ্গার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *